|

ভিওআইপি সরঞ্জামাদিসহ অবৈধ ভিওআইপি চক্রের ১ জন গ্রেফতার

Published: Wed, 22 Sep 2021 | Updated: Wed, 22 Sep 2021

রাজধানীর শেরেবাংলা নগর এলাকায় র‌্যাবের অভিযানে ভিওআইপি সরঞ্জামাদিসহ অবৈধ ভিওআইপি চক্রের ০১ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) দেড়টা থেকে ২টা পর্যন্ত র‌্যাব-১০ ও বিটিআরসি’র সমন্বয়ে যৌথ আভিযানিক দল রাজধানী ঢাকার শেরেবাংলা নগর থানাধীন ৭০/ডি-৩ ইন্দ্রিরা রোড এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে অবৈধ ভিওআইপি এবং আন্তর্জাতিক পেমেন্ট ও রিচার্জ ব্যবসা চক্রের ০১ সদস্যকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির নাম মো. শামসুজ্জামান (২৬) বলে জানা যায়। 

এসময় তার নিকট থেকে ভিওআইপি ব্যবসায় ব্যবহৃত ০৯টি মোবাইল ফোন, ০১টি সিপিইউ, ০৯টি মোবাইল চার্জার,  ০১টি কি-বোর্ড, ১৫০ পিস কলিং কার্ড (মূল্য- ০১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা), ০১টি মাউস, ০১টি এসি অ্যাডাপ্টর, ০১টি মনিটর, ০১টি বিভিন্ন ডকুমেন্ট ফাইল ও ০১টি মনিটর স্ট্যান্ড উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, গ্রেফতারকৃত আসামি অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার চক্রের সদস্য। তারা দীর্ঘদিন যাবৎ সরকারকে প্রদেয় রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে ভিওআইপি এবং আন্তর্জাতিক পেমেন্ট ও রিচার্জের ব্যবসা চালিয়ে আসছিল। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) হতে লাইসেন্স গ্রহণ ব্যতীত পারস্পরিক যোগসাজসে ও সহযোগিতায় সফ্টওয়্যার ভিত্তিক সুইচের মাধ্যমে টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপন করে অবৈধভাবে আন্তর্জাতিক কল আদান-প্রদান এবং উক্ত স্থাপনা পরিচালনা করার মাধ্যমে টেলিযোগাযোগ সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে প্রদেয় রাজস্ব/চার্জ ফাঁকি দেওয়ার উদ্দেশ্যে যান্ত্রিক, ভার্চুয়াল এবং সফ্টওয়্যার ভিত্তিক কৌশল অবলম্বন করে অবৈধ ভাবে আন্তর্জাতিক পেমেন্ট ও রিচার্জ সেবা প্রদান করত। এর ফলে চক্রটি গত দেড় বছরে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত বর্তমান আন্তর্জাতিক কল টার্মিনেশন রেট অনুযায়ী প্রায় ০৪ কোটি টাকা সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে আসছিল বলে জানা যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

ডব্লিউইউ