|

কিশোরগঞ্জ হাওড়ে ৫৪০ কোটি ২৬ লক্ষ টাকার প্রকল্প অনুমোদন

Published: Fri, 13 May 2022 | Updated: Fri, 13 May 2022

বিজয়কর রতন, মিঠামইন (কিশোরগঞ্জ): কিশোরগঞ্জের নিকলী ও বাজিতপুরে নদীর তীর রক্ষা, খাল পুনঃখননসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের জন্য ১৯৮ কোটি ৭৮ লক্ষ টাকার প্রকল্প ব্যয় একনেক সভায় অনুমোদন করা হয়েছে। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে একনেকের এক সভায় এসব প্রকল্প অনুমোদন করা হয়। 

এরমধ্যে নিকলী ও বাজিতপুর উপজেলার ৫.৫০ কিলোমিটার নদীর তীর প্রতিরক্ষা প্রকল্প ব্যয় ১৮১ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকা এবং ২৯.৬৬ কিলোমিটার খাল পুনপুর্খনন প্রকল্প ব্যয় ১৬ কোটি ২ লক্ষ টাকা। নিকলী উপজেলায় ১৩৫ কোটি ৫১ লক্ষ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করা হবে। 

নিকলীর প্রতিরক্ষা প্রকল্পের মধ্যে ছাতিরচরে ১.৪০ কিলোমিটার নদীর তীর প্রতিরক্ষা প্রকল্প ব্যয় ৫৪ কোটি ৭১ লক্ষ টাকা এবং সিংপুর গ্রাম এলাকায় ২.২০ কিলোমিটার নদীর তীর প্রতিরক্ষা প্রকল্প ব্যয় ৬৬ কোটি ৭৮ লক্ষ টাকা।

নিকলী উপজেলার খাল পুনঃখনন প্রকল্পের মধ্যে আরিবিলের খাল, পাগলা খাল, পইতানের খাল, বোরপিট খাল ওসোয়াইজনি নদী ২৪.৬৪ কিলোমিটার প্রকল্প ব্যয় ১৪ কোটি ২ লক্ষ টাকা বাজিতপুর উপজেলায় ৬২ কোটি ২৭ লক্ষ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করা হবে। 

বাজিতপুরে ০.৯০ কিলোমিটা আছানপুর নদীর তীর প্রতিরক্ষা প্রকল্প ব্যয় ২৮ কোটি ৭৩ লক্ষ টাকা, ০.৫০ কিলোমিটার কামেরবালি নদীর তীর প্রতিরক্ষা প্রকল্প ব্যয় ১৫ কোটি ৭৭ লক্ষ টাকা ও ০.৫০ কিলোমিটার শাহপুর নদীর তীর প্রতিরক্ষা প্রকল্প ব্যয় ১৫ কোটি ৭৭ লক্ষ টাকা। বাজিতপুর  উপজেলার খাল পুনপুর্খনন প্রকল্পের মধ্যে ৫.০২ কিলোমিটার শিয়ালদি খাল পুনপুর্খনন প্রকল্প ব্যয় ২ কোটি টাকা। 

কিশোরগঞ্জ -৫ (বাজিতপুর নিকলী) আসনের সংসদ সদস্য মো. আফজাল হোসেন জানান, কিশোরগঞ্জ জেলার ১০টি উপজেলার নদীর তীর প্রতিরক্ষা, ওয়েভ প্রটেকশন ও খাল পুনপুর্খনন প্রকল্প একনেক সভায় অনুমোদন পেয়েছে। প্রকল্পের সর্বমোট ব্যয় ৬৫৪ কোটি ২৫ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা। এরমধ্যে নিকলী ও বাজিতপুরেপু ১৯৭ কোটি ৭৮ লক্ষ টাকার প্রকল্প রয়েছে। আগামী দুই মাসের মধ্যে প্রাক্কলন তৈরি করে দরপত্র আহ্বান করা হবে বলে জানান তিনি। 

কিশোরগঞ্জ-৫ (বাজিতপুর-নিকলী) আসনের সংসদ সদস্য ও পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মো.আফজাল হোসেন এর প্রচেষ্টায় এসব প্রকল্প গ্রহণ ও অনুমোদন করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। 

অন্যদিকে অপর একটি প্রকল্প মিঠামইন উপজেলার ঘোড়াউত্রা, বোলাই-শ্রীঘাং নদীর অংশ বিশেষ ও ইটনা উপজেলার ধনু নদী, নামা কোড়া নদী  এবং অষ্টগ্রাম উপজেলার ধলেশ্বরী নদীর অংশ বিশেষের নব্যতা উন্নয়ন ও পুনরুদ্ধার প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৪২ কোটি টাকা। 

কিশোরগঞ্জ ৪ আসনের এমপি প্রকৌশলী রেজওয়ান আহম্মেদ তৌফিক এর প্রচেষ্টায় এসকল প্রকল্প অনুমোদন করা হয়েছে। দীর্ঘদিন যাবত এসকল নদী খনন ও উন্নয়নের দাবী করে আসছিল তিন উপজেলার মানুষ।

আইআর /