|

কিশোরগঞ্জ জেলা সদরের সাথে হাওরের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

Published: Sun, 15 May 2022 | Updated: Sun, 15 May 2022

বিজয়কর রতন, মিঠামইন (কিশোরগঞ্জ): উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও সুরমা,কুশিয়ারার নদীর পানি প্রবল চাপে কিশোরগঞ্জ হাওরে ধনুও নাগচিনি নদীতে পানি বৃদ্ধির কারণে রোববার (১৫ মে) বালিখলা ফেরি ঘাট ও মিঠামইন শান্তিপুর ফেরি ঘাটের সংযোগ সড়ক তলিয়ে ফেরি দুুটি বন্ধ হয়ে গেছে। 

জেলা সদরের সাথে হাওরের ইটনা, মিঠামইন, অষ্টগ্রামের যোগাযোগের মাধ্যম একমাএ এই সড়ক। বছরের ৮ মাস এ সড়ক দিয়ে যাএী চলাচল,মালামাল পরিবহন সহ যোগাযোগের একমাএ মাধ্যম। সরেজমিনে রোববার সকালে মিঠামইন ও বালিখলা ফেরি ঘাটে দেখা যায় ফেরির দু পাশের সংযোগ সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে। যানবাহন বন্ধ রয়েছে। 

দুটি ঘাটে এই যাএীদের প্রচন্ড ভীড় ঘোড়াউএা নদী ও ধনু নদীতে ছোট ছোট ইঞ্জিন চালিত বোটে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাএীরা পারাপার হচ্ছে। বোট চালকরা অতিরিক্ত ভাড়া নিচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। 

পানি উন্নয়ন বোর্ডের কিশোরগঞ্জ অফিসের তথ্য মতে সিলেটের সুরমা, কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। শনিবার রাত থেকেই পানি বাড়তে শুরু করেছে। উজানের পানি ভাটীতে নামার কারণে ঘোড়াউএা ও ধনু নদীর পানি বাড়ছে।

ফেরিতে যানচলাচল বন্ধ রয়েছে। কিশোরগঞ্জ সড়ক ও জন পথের নির্বাহী প্রকৌশলী রিতেশ বড়ুয়ার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ফেরির দু, পাশে সংযোগ সড়কে পানি উঠার কারণে আপাতত ফেরি দুটি বন্ধ রয়েছে।

ঝুঁকির মধ্যে ফেরি চালু করা সম্ভব নয়।পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে ফেরি চামড়া বন্দর নিয়ে আসা হবে।তবে এখন ছোট ছোট ইঞ্জিন চালিত বোট দিয়ে নদী পারাপার হচ্ছে। অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার ব্যাপারে স্হানীয় প্রশাসনের সাথে কথা বলবেন।

আইআর /