|

ডোমারে স্কুলের সততা স্টোর ও বিজ্ঞানাগারে চুরি

Published: Mon, 20 Sep 2021 | Updated: Mon, 20 Sep 2021

মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন, নীলফামারী প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডোমারে ৯ দিনের ব্যবধানে আরও একটি স্কুলে চুরির ঘটনা ঘটেছে। তবে এবার চোরেরা শুধু স্কুলের মালামাল চুরি করেই ক্ষান্ত হয়নি, তারা স্কুলের সততা স্টোরের টাকা চুরি করেও নিয়ে গেছে। নীলফামারীর ডোমার উপজেলার শতবর্ষী ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয়টিতে রবিবার দিবাগত রাতের কোন এক সময় সততা স্টোর ও বিজ্ঞানাগারের দুই লক্ষাধিক টাকার মালামাল চুরির ঘটনা ঘটেছে। 

বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন জানান, বিদ্যালয়ের সততা স্টোরের ক্যাশ বাক্সে রক্ষিত প্রায় সাত হাজার টাকা, বিজ্ঞানাগারের ৪টি অনুবিক্ষণ যন্ত্র, গ্যাসজার, একশতটি রক্ত পরিক্ষা করার স্লাব, একটি পরিমাপক যন্ত্রসহ প্রায় দুই লক্ষ টাকার মালামাল চুরি হয়। 

বিদ্যালয়ের নৈশপ্রহরী লেবু ইসলাম জানান, রবিবার রাতে কয়েকবার বিদ্যালয়ের চারিদিকে হাঁটাহাঁটি করি। রাত দেড়টার দিকে হঠাৎ করে শরীরটা খারাপ অনুভব হওয়ায় ঘুমিয়ে পড়ি। সকালে ঘুম থেকে উঠে পিছন দিয়ে দরজা বন্ধ থাকায় আরেকটি দরজা দিয়ে বের হই। এসময় সততা স্টোর ও বিজ্ঞানাগার কক্ষ দুটি তালা ভাঙা দেখতে পাই। ভিতরে গিয়ে দেখি সততা স্টোরের ক্যাশ বাক্সের তালা ভাঙা। সেখানে রক্ষিত টাকাগুলো ছিল না। বিজ্ঞানাগারের অনেক যন্ত্রপাতিও দেখতে পাই নাই। দ্রুত আমি প্রধান শিক্ষককে খবর দেই। 

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবিউল আলম বিদ্যালয়ে চুরির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, সকালে খবর পেয়ে বিদ্যালয়ে এসে দেখতে পাই সততা স্টোরসহ বিজ্ঞানাগারের মালামাল চুরি হয়েছে। বিষয়টি পুলিশ ও ম্যানেজিং কমিটিকে অবহিত করি।। পুলিশ এসে তদন্ত করেছে। তারা ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। 

বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি আক্তারুজ্জামান সুমন জানান, চুরি যাওয়া জিনিসপত্রের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। সোমবার বিকালে ম্যানেজিং কমিটির সভা করে এ বিষয়ে সিন্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। 

ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইফুল ইসলাম জানান, আমরা প্রাথমিক তদন্ত করেছি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।  

এ বিষয়ে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এর সাধারণ সম্পাদক গোলাম কুদ্দুস আইয়ুব জানান, ছাত্রছাত্রীদের চরিত্র গঠনের জন্য বিদ্যালয়গুলোতে সততা স্টোর চালু করা হয়। সেখানে দোকানদার ছাড়াই শিক্ষার্থীরা পণ্য কেনাবেচা করে। তবে চোর তো চোরই, তারা চুরি করে। “চোর না শুনে ধর্মের কাহিনী” প্রবাদটি সত্য প্রমাণ করলো চোরেরা। 

উল্লেখ্য, গত ১১ সেপ্টেম্বর রাতে ডোমার শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত শহীদ স্মৃতি মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়েও চুরির ঘটনা ঘটেছিল। এই ঘটনার ৯ দিন পর শহরের আরও একটি ঐতিহ্যবাহী স্কুলে চুরির ঘটনায় নানা প্রশ্নের সৃষ্টি করেছে।

 

ডব্লিউইউ