|

একসময়ের জমজমাট রুপলাল হাউজ এখন আড়ত

Published: Thu, 17 Jun 2021 | Updated: Thu, 17 Jun 2021

মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ: পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী স্থাপনার মধ্যে রূপলাল হাউজ অন্যতম। কিন্তু সংরক্ষণের অভাবে হারিয়ে যেতে বসেছে এই রুপলাল হাউজ। এই হাউজটির বেশিরভাগ অংশই দীর্ঘকাল ধরে বেদখল হয়ে রয়েছে।

হাউজটি পুরান ঢাকার শ্যামবাজারের পাশে ঊনবিংশ শতকে নির্মিত একটি ভবন। এটি বুড়িগঙ্গা নদীর উত্তর পারে ফরাশগঞ্জ এলাকায় অবস্থিত। ফরাশগঞ্জ আসলে আহসান মঞ্জিলের কথা বললে সবাই আঙুল দেখিয়ে পথ চিনিয়ে দেবেন। কিন্তু যদি বলেন রুপলাল হাউজটা কোথায় তিনি মাথা চুলকাবেন।

হ্যাঁ, বলছি সেই রুপলাল হাউজের সেই রুপলাল দাশ, রঘুনাথ দাশদের কথা। কালের বির্বতনে হারিয়ে গেছে তাঁদের ইতিহাস। হয়তো একদিন হারিয়ে যাবে এই বাড়িটিও।

কথিত আছে, এককালে ব্রিটিশ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঢাকা আসলে রুপলাল হাউজে রুম ভাড়া নিয়ে থাকতেন। তৎকালীন আমলে রুম ভাড়া ছিল ২০০ টাকা। ঢাকার নবাব আর রুপলাল বাবুদের মধ্যে একটা ঠান্ডা যুদ্ধ সব সময় লেগে থাকতো। সে সময় ঢাকা শহরে নাচ ঘর বা বল রুম ছিল শুধু আহসান মঞ্জিল আর রুপলাল হাউজে।

১৮৮৮ সালে কোনো এক সময় লর্ড ডাফরিন ঢাকায় আসলেন। তার সম্মানে নাচ গানের আসর বসানো নিয়ে প্রতিযোগিতায় নামেন ঢাকার নবাব আর রুপলাল বাবুরা। সে সময় অনেক বেশী ভোটে বিজয়ী হয় রুপলাল হাউজ। বর্তমানে পান-মসলার আড়তের আড়ালে হারিয়ে গেছে তার পুরান আধিপত্য। দেবোত্তর এই সম্পত্তি এখন জামাল বাবুদের দখলে। সে আর এক ইতিহাস। রুপলাল হাউজ যে আমাদের ঐতিহ্য ছিল সে কথাও হয়তো কিছুদিন পর মানুষ মনে রাখবে না।

রূপলাল হাউজ বাংলাদেশের ঢাকা শহরের পুরানো ঢাকার শ্যামবাজার এলাকায় ঊনবিংশ শতকে নির্মিত একটি ভবন। রূপলাল হাউজ নামের এই ভবনটি নির্মাণ করেন হিন্দু ব্যবসায়ী ভ্রাতৃদ্বয় রূপলাল দাস ও রঘুনাথ দাস। এই ভবনটি ৯১ দশমিক ৪৪ মিটার দীর্ঘ একটি দ্বিতল ভবন। দ্বিতল এই ভবনের স্থাপত্যশৈলী অভিনব। এটি জমিদার ও বণিকদের তৈরি। যাকে ইউনিক বলেছেন স্থাপত্যবিদরা। এর পেছনভাগে বুড়িগঙ্গা নদী প্রবাহমান।

রূপলাল ঢাকার বিখ্যাত আর্মেনীয় জমিদার আরাতুনের কাছ থেকে বাড়িটি কিনে পুনর্নির্মাণ করেছিলেন। এর নির্মাণ কাল ঊনবিংশ শতাব্দীর ষাটের দশক। মার্টিন অ্যান্ড কোং কোম্পানির একজন স্থপতি এর নকশা প্রণয়ন করেছিলেন। দ্বিতল এই ভবনের স্থাপত্য শৈলী অভিনব। এটি দুইটি অসম অংশে বিভক্ত যার প্রতিটিতে কিছুটা ভিন্ন স্থাপত্য শৈলী দেখা যায়। এর ভিত্তিভূমি ইংরেজী E অক্ষরের ন্যায়। যার বাহুত্রয় শহরের দিকে প্রসারিত। মাঝের দীর্ঘতম বাহুটির দৈর্ঘ্য ১৮.৩৩ মিটার। ভবনটির ছাদ নির্মাণ করা হয়েছিল 'কোরিন্থীয়' রীতিতে। এর উপরে রয়েছে রেনেসাঁ যুগের কায়দায় নির্মিত 'পেডিমেন্ট'। রূপলাল হাউজে দ্বিতীয় তলায় দুটি অংশে বিভিন্ন আয়তনের মোট ৫০টিরও বেশি কক্ষ রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে কয়েকটি প্রশস্ত দরবার কক্ষ। ভবনের পশ্চিমাংশে দোতলায় অবস্থিত নাচঘরটি আকর্ষণীয়ভাবে তৈরি। এর মেঝে ছিল কাঠনির্মিত। পুরো বাড়ি জুড়ে উত্তর-দক্ষিণ পার্ম্বে রয়েছে প্রশস্ত বারান্দা। বারান্দা দুটি ইট-নির্মিত 'সেমি-কোরিন্থীয়' স্তম্ভ বা সমায়ত ইটের স্তম্ভের ওপর সংস্থাপিত। নদীর দিকে সম্মুখভাগে ভবনের চূড়াতে একটি বড় ঘড়ি ছিল যা ১৮৯৭ খ্রিস্টাব্দের ভূমিকম্পে ভেঙ্গে পড়ার পড়ে আর ঠিক করা হয়নি। ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দে ভারত বিভাগকালে রূপলালের উত্তরাধিকারীরা ঢাকা ছেড়ে পশ্চিমবঙ্গে চলে যান। খাতা-কলমে রুপলাল হাউজ এখনও টিকে আছে। এটিকে জামাল হাউস নামেই বেশির ভাগ লোক চিনে।

সাম্প্রতিক কালে রূপলাল হাউজ মসলা ও সবজি ব্যবসায়ীদের দখলে চলে গিয়েছিল। সরকারিভাবে এই স্থাপনাটি প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের সম্পদ হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে। ঘোষণার পর আজ পর্যন্ত ভবনটি সংরক্ষণে আনতে পারেনি সরকার।

রুপলাল হাউজে যেতে হলে ঢাকার যে কোন প্রান্ত থেকে ফরাশগঞ্জ আসতে হবে। এরপর বাড়িটা আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে। অনুসন্ধানী চোখ থাকলে ফরাশগঞ্জকে আপনার পানাম নগরের থেকে কোন অংশে কম মনে হবে না। মসলার গন্ধে, পেঁয়াজের ঝাঁজে নাকাল হয়ে খুঁজে বের করতে হবে আপনাকে পুরান বাড়িগুলো।

ছবি: অভিযাত্রা

স্থানীয় হিসেব অনুযায়ী, এই ফরাশগঞ্জে পঞ্চাশটির অধিক পুরান বাড়ি আছে। খুঁজে বের করতে হলে লাগবে পাখির চোখ। শ্যামবাজারের কাছ ঘেঁষেই সেই রূপলাল হাউজ। আর বাজারের মধ্য দিয়েই একটা আড়ৎ। আড়ৎটাই রূপলাল হাউজের নিচতলার একটা অংশ! চারিদিকে অসংখ্য দোকানপাটসহ স্থাপনা গড়ে উঠেছে। ভবনটির নিচতলার পুরোটাই চলে গেছে ব্যবসায়ীদের দখলে। গেট দিয়ে ঢোকার পরেই উপরে ওঠার কাঠের সিঁড়ি। তবে তা সবসময় অন্ধকার থাকে। তবে মাঝখানের উঠানটায় রোদের আলো পড়ছে। চতুষ্কোণ বাড়ি খ্যাত রূপলাল হাউজকে ঘিরে শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এসবের মধ্যে রয়েছে জনতা কৃষিপণ্য বিপণন কেন্দ্র, বৈশাখী বাণিজ্যালয়, আরাফাত ট্রেডার্স, মেসার্স ঢাকা-বাংলা আড়ৎ, রাশেদ বাণিজ্যালয়, ইউনাইটেড ট্রেডার্স প্রভৃতি।

ইতিহাসের সাথে বর্তমান রূপলাল হাউজের আকাশ-পাতাল ব্যবধান। দিন দিন দেয়াল থেকে চুন সুড়কির আবরণ খসে পড়ছে। ভবনের অনেকটা অংশ ভেঙেও গিয়েছে। দেয়ালে গজিয়েছে বটগাছ। উপরে ওঠার সিঁড়িগুলো ভেঙে গেছে। এইরকম ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায়ও সেখানে বসবাস করছে বেশ কিছু পরিবার। কিন্তু ভবনটি সংস্কারের কোন উদ্যোগ কোথাও চোখে পড়েনি না। ভবনের নিচে গড়ে উঠেছে মসলার বাজার।

বাড়িটি এখন ধ্বংসের মুখোমুখি এবং সবগুলো কক্ষ ও প্রাঙ্গন বেদখল। ভেতরে যেতে বাধা দেয় অনেকেই। তারা ক্যামেরা দেখলে ভয় পান। ছবি তুলতে গেলে করেন নানা ধরনের প্রশ্ন। অবস্থাদৃষ্টে মনে হওয়া স্বাভাবিক, রূপলাল হাউজে আসিনি। পুরানো ঢাকার বিস্মৃতির অন্তরালে ঢাকা পড়া কোন জায়গায় আসিনি, আসিনি এক সময়ের পুরানো ঢাকার জৌলুসপূর্ণ কোন বাড়িতে। এসেছি, কোন এক মসলার আড়তে। এই হলো রূপলার হাউজের বর্তমান পরিণতি। প্রাচীন এ নিদর্শনগুলো রক্ষা করার জন্য একটি বড় ধরনের বিনিয়োগ সরকারকেই করতে হবে। পৃথিবীর অনেক দেশে সংরক্ষিত ঐতিহ্যবাহী এলাকা আছে। আমাদের দেশেও আছে। এতে করে আমাদের ঐতিহ্য সংরক্ষণের পাশাপাশি বিদেশি অনেক পর্যটককে আকর্ষণ করা সম্ভব।

এ বিষয়ে প্রত্নতন্ত্র অধিদপ্তরের আঞ্চলিক পরিচালক (ঢাকা বিভাগ) রাখী রায় বলেন, ‘রুপলাল হাউজ প্রত্নতত্ত্ব বিভাগে ১৯৮৯ সালে সংরক্ষিত একটি পুরাকীর্তি। ১৯৪৭ সালে রুপলাল হাউজের মালিকেরা তাঁদের সম্পত্তি বিক্রি করে চলে গেছেন। তখন থেকেই এটা পেঁয়াজ-মরিচের ব্যবসার আড়ৎ। এই ব্যবসার আড়ৎ উঠানোর জন্য প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ বেশ কয়েকবার চেষ্টা করেছে, কিন্তু পারেনি। তাঁরা এখানে দীর্ঘদিন যাবত ব্যবসা করে যাচ্ছে। তবে বিল্ডিংয়ের কোনো ক্ষতি হচ্ছে না, বিল্ডিং ঠিক আছে। তবে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি কিভাবে এটা নিজেদের আওতায় আনা যায় এবং পরবর্তীতে আমরা এটা সংরক্ষণ করবো।’

ও/এসএ ০৯:৪২