|

প্রতি বছর বিশ্বে ৫৯ হাজার মানুষ মারা যায় জলাতঙ্কে 

Published: Wed, 28 Sep 2022 | Updated: Wed, 28 Sep 2022

জলাতঙ্ক মরণব্যাধি, যা প্রাণী থেকে মানুষে ও অন্য প্রাণীতে সংক্রমিত হতে পারে। কুকুর, বিড়াল, বানর, বেজি, শিয়ালের কামড় বা আঁচড়ে এ রোগ সংক্রমিত হয়। এই রোগে বিশ্বে বছরে ৫৯ হাজার মানুষের মৃত্যু ঘটে।

এ বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধি এবং প্রতিরোধ ও নির্মূলের লক্ষ্যে ২০০৭ সাল থেকে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালিত হয়ে আসছে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য 'জলাতঙ্ক :মৃত্যু আর নয়, সবার সঙ্গে সমন্বয়'। এ উপলক্ষে সরকার, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও দেশীয় সংগঠনের পক্ষ থেকে কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার (সিডিসি) জুনোটিক ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রাম জাতীয়, বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে র‌্যালি, সেমিনার, মুক্ত আলোচনা, জনসচেতনমূলক কার্যক্রমসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান করবে। জনসচেতনতা বাড়াতে লিফলেট ও ফেস্টুন বিতরণ, জনবার্তা প্রচারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সিডিসি সূত্র জানিয়েছে, দেশে চলতি বছরের জুলাই পর্যন্ত ৯১ হাজার ৬১০টি কুকুরকে টিকা দেওয়া হয়েছে। একই সময়ে ২ লাখ ৯৯ হাজার ৯৮৯ জনকে জলাতঙ্ক প্রতিরোধে টিকা দেওয়া হয়েছে। এ সময় জলাতঙ্কে আক্রান্ত ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। ২০২১ সালে ৪ লাখ ১৩ হাজার ৮২৭টি কুকুরকে টিকা দেওয়া হয়েছে। ২ লাখ ৭৮ হাজার ৬৬৩ জনকে টিকা দেওয়া হয়। ওই বছর ৪০ জনের মৃত্যু হয়।

জলাতঙ্ক ভয়ংকর সংক্রামক রোগ; যার কোনো চিকিৎসা আবিস্কৃৃত হয়নি এবং মৃত্যুই আক্রান্ত রোগীর অনিবার্য পরিণতি। প্রধানত কুকুর থেকে (৯৫ শতাংশের বেশি) জলাতঙ্ক রোগের সংক্রমণ ঘটে। শিয়াল, বিড়াল, বেজি, বানর এমনকি আক্রান্ত গবাদি পশু থেকেও এ রোগ মানুষ ও অন্যান্য প্রাণীতে সংক্রমিত হতে পারে। জলাতঙ্ক বিপজ্জনক হলেও এটি শতভাগ প্রতিরোধযোগ্য। তিনি বলেন, কুকুর বা সন্দেহজনক জলাতঙ্কগ্রস্ত প্রাণী দ্বারা আক্রান্তের পর দেহে সৃষ্ট ক্ষতস্থান যথাশীঘ্র ক্ষারযুক্ত সাবান ও প্রবহমান পানি দিয়ে ১৫ মিনিট ধৌত করা হলে সেখানে নিপতিত লালা বা রেবিস ভাইরাস নিষ্ফ্ক্রিয় হয়ে পড়ে। সহজ এ প্রযুক্তি প্রয়োগ করে প্রায় ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রে এ ভয়ংকর ব্যাধি প্রতিরোধ করা সম্ভব হতে পারে।

আইআর /