শুক্রবার থেকে ধীরগতি থাকবে ইন্টারনেটে

Published: Thu, 29 Oct 2020 | Updated: Thu, 29 Oct 2020

অভিযাত্রা ডেস্ক : ভারতের একটি সাবমেরিন ক্যাবলের রক্ষণাবেক্ষণ কাজ শুরু হচ্ছে। বাংলাদেশের যেসব গ্রাহক ভারতের সেই সাবমেরিন ক্যাবলের আওতায় ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তারা আজ শুক্রবার থেকে ইন্টারনেটের গতি কিছুটা কম পেতে পারেন।

ভারতীয় এয়ারটেল লিমিটেডের গ্লোবাল সার্ভিসেস ম্যানেজমেন্ট সেন্টার গত বুধবার বাংলাদেশে তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠানকে ই-মেইলে জানায়, তাদের আইটুআই সাবমেরিন ক্যাবলের পরিবর্তন ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজ শুরু হওয়ায় ইন্টারনেটসেবায় এই বিঘ্ন ঘটবে।

এ রক্ষণাবেক্ষণ কার্যক্রম ৩০ অক্টোবর থেকে শুরু হয়ে ২ নভেম্বর পর্যন্ত চলতে পারে। ফলে ৪ দিন নাগাদ এ সমস্যা চলতে পারে।

বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেডের (বিএসসিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক মসিউর রহমান বলেন, আমাদের দুটি সাবমেরিন ক্যাবলে কোনো সমস্যা নেই। সমস্যা হতে পারে যেসব ইন্টারন্যাশনাল টেরেস্ট্রিয়াল কেবল (আইটিসি) অপারেটর ভারত থেকে ব্যান্ডউইথ আনছে তাদের দিক থেকে।

তিনি আরও বলেন, দেশে বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথের চাহিদা দুই হাজার জিবিপিএস (গিগাবাইট পার সেকেন্ড)। এর মধ্যে আমাদের কাছ থেকে নেয়া হয় এক হাজার ২৭৫ জিবিপিএস। বাকিটা আসে আইটিসি অপারেটরদের মাধ্যমে ভারত থেকে।

এর আগে ২৬ অক্টোবর জানানো হয়েছিল, ২৭ অক্টোবর থেকে এই কাজ শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে। ভারতীয় এয়ারটেল লিমিটেডের পক্ষে আরও বলা হয়েছে, কাজের অগ্রগতি ও আবহাওয়ার অবস্থার ওপর নির্ভর করে সময়সূচিতে পরিবর্তন আসতে পারে।

এই খাতের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চেন্নাইয়ের সঙ্গে সিঙ্গাপুরের সংযোগকারী সাবমেরিন ক্যাবলের রক্ষণাবেক্ষণ কাজের জন্য কিছু এলাকায় ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা ৪ দিন ধীরগতির সেবা পেতে পারে।

ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে বা আইআইজি এবং ইন্টারন্যাশনাল টেরেস্ট্রিয়াল ক্যাবল (আইটিসি) অপারেটর ফাইবার অ্যাট হোম গ্লোবাল লিমিটেডের বাণিজ্য বিভাগের প্রধান মসিউর রহমান বলেন, দেশের আইটিসি অপারেটররা ভারতের চেন্নাই এবং মুম্বাই থেকে তাদের সাবমেরিন কেবলের ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ সরবরাহ নিয়ে থাকে। বেনাপোল সীমান্ত হয়ে এই ব্যান্ডউইথ দেশে আসে। যেসব আইটিসি চেন্নাই থেকে ‘আইটুআই’ সাবমেরিন ক্যাবলের ব্যান্ডউইথ নিয়ে থাকে, তাদের জন্য সমস্যা হতে পারে। কারণ ‘আইটুআই’ সাবমেরিন কেবলের চেন্নাই থেকে সিঙ্গাপুর রুটের লিঙ্কের মেরামত কাজ চলবে ৩০ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত।

তিনি আরও বলেন, যদিও বাংলাদেশের দুটি সাবমেরিন ক্যাবলে কোনো সমস্যা নেই, তারপরও দেশের গ্রাহকরা এই ৪ দিন ইন্টারনেটের গতি নিয়ে কিছুটা সমস্যায় পড়তে পারেন। কারণ আইটিসি অপারেটররা চেন্নাই থেকে ভাগাভাগি করে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ নিয়ে থাকে।

ও/এসএ/