আনারসের যত কথা

Published: Sun, 03 Jan 2021 | Updated: Sun, 03 Jan 2021

অভিযাত্রা ডেস্ক : আনারস গাছ ১৫১৩ খ্রিষ্টাব্দে পর্তুগিজরা ব্রাজিল থেকে ভারতের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় মালাবার উপকূলে (বর্তমানে কেরালা রাজ্য) নিয়ে আসে। পরবর্তীকালে দক্ষিণ আমেরিকা হয়ে পশ্চিম ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জে আনারস চাষ ছড়ায় তাদের হাতেই।

ক্রমে ক্রমে দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারত, থাইল্যান্ড, ইন্দোচীন, ফিলিপাইন, যুক্তরাষ্ট্র (হাওয়াই রাজ্য), মেক্সিকো, মালয়েশিয়া, পূর্ব ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জ ও অস্ট্রেলিয়ায় প্রসার লাভ করে।

পৃথিবীতে প্রায় ৯৫ প্রজাতির আনারস রয়েছে। বাংলাদেশে সাধারণত চার জাতের আনারস চাষ করা হয়-জায়েন্ট কিউ, কুইন, হরিচরণ ভিটা ও বারুইপুর। ঘোড়াশাল, সিলেট, চট্টগ্রাম ও কুমিল্লায় এসব জাতের চাষ সবচেয়ে বেশি।

জায়েন্ট কিউ জাত সবচেয়ে বড় হয়। এ জাতের কাঁচা আনারস গাঢ় কালচে সবুজ। কিন্তু পাকলে কমলা হলুদ বর্ণ ধারণ করে। কুইন, বারুইপুর ও হরিচরণ ভিটা জাতের আনারস আকারে ছোট।

তবে কয়েকটি স্বাদে সামান্য টকও হয়ে থাকে। হরিচরণ ভিটা স্বাদে বেশ মিষ্টি। আনারস সুস্বাদু ও সুমিষ্ট আর রসে টইটম্বুর ফল।

পুষ্টিগুণে আনারস অতুলনীয়। এতে ভিটামিন এ বি সি ক্যালসিয়াম ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদান রয়েছে। প্রতি কেজি ফল থেকে ৫০০ ক্যালরি শক্তি পাওয়া যায়।

কাঁচা আনারস স্বাদে অম্ল এবং পাকা আনারস মধুরাম্ল। কাঁচা আনারসের চাটনি রান্না করে খাওয়া যায়। আনারস থেকে জ্যাম, জেলি, স্কোয়াশ, রস প্রভৃতি তৈরি হয়। কিছুকিছু আনারস জ্বরে ও জন্ডিস রোগে বেশ উপকারী।

ও/এসএ/