শীঘ্রই রাঙ্গাবালীতে চালু হচ্ছে ‘বোট এ্যাম্বুলেন্স’ সেবা 

Published: Sat, 30 Nov 2019 | Updated: Sat, 30 Nov 2019

অভিযাত্রা ডেস্ক: দেশের সর্বদক্ষিণে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় প্রায় দেড় লাখ মানুষের বাস করে। এ উপজেলায় নেই পর্যাপ্ত স্বাস্থ্য সেবা। যাতায়াতের একমাত্র পন্থা নদী পথের লঞ্চ বা ট্রলার। গ্রামে কেউ অসুস্থ হলে নদী পথে হাসপাতালে যেতে সময় লাগে প্রায় ২ ঘণ্টা। এর ফলে রাস্তায় বেশির ভাগ রোগী মৃত্যু বরন করে। 

তাদের কথা মাথায় রেখে অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশন এবং আইডিএলসি'র যৌথ ভাবে একটি অসাধারণ উদ্যোগ নিয়েছে। রাঙ্গাবালী উপজেলা মানুষের জন্য নিয়ে এসেছে প্রথম প্রাইভেট দ্রুতগামি ‘বোট এ্যাম্বুলেন্স’। 

২৬ ফিট দীর্ঘ এই কেবিন স্পীড বোটে থাকছে রোগীর জন্য অক্সিজেন এবং জরুরী সকল ওষুধের ব্যবস্থা। ১১৫ হর্স পাওয়ার সম্মিলিত শক্তিশালী জাপানি ইঞ্জিন দিয়ে করা হয়েছে এই এম্বুলেন্স, ফলে রোগিকে হাসপাতালে পৌঁছাতে সময় লাগবে মাত্র ২০-৩০ মিনিট। বোট তৈরির সকল কাজ এখন সম্পন্ন হয়েছে। ইতি মধ্যে বাংলাদেশ নৌ বন্দর কর্তৃপক্ষ থেকে লাইসেন্স গ্রহণ করেছে বোট এ্যাম্বুলেন্সটি। একজন দক্ষ চালক এবং একজন বোট ম্যানেজার ২৪ ঘণ্টা সেবা দিতে প্রস্তুত থাকছে বোট এ্যাম্বুলেন্সটি তে। জরুরী রোগীর জন্য থাকবে একজন মেডিকেল অফিসার। 

অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশন এর প্রতিষ্ঠাতা আহমেদ ইমতিয়াজ জামি জানান, ‌‘এটি আমাদের একটি স্বপ্নের প্রজেক্ট, এই বোটের ফলে আমরা যদি রোগী মৃত্যুর হার কিছুটা হলেও কমাতে পারি সেটাই হবে আমাদের প্রাপ্তি, এটি রাঙ্গাবালি মানুষের সম্পদ, সবাই মিলেই আমরা চেস্টা করলে এই প্রকল্প সফল হবে।’ 

ডিসেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে উদ্বোধনের অপেক্ষায় এখন ‘বোট এ্যাম্বুলেন্স- এমবি পায়রা’। আগামী ১লা জানুয়ারি ২০২০ থেকে অফিসিয়ালি যাত্রা শুরু করবে এই এ্যাম্বুলেন্স।

-এমজে