শিশুর ভুবন - ছড়া কবিতা

মো. আলমগীর

এক দুই তিন
রাত হলো দিন
দশ এগার বার
জামা কাপড় পর

ঘুম দিবনা সকালে 
খেতে দাও মা আমাকে 
দশটা বেজে গেল
যাব পাঠশালায়

দেরি হলে রাগ হয় 
গুরু মহাশয় 
পাশে বসে থাকি আমি 
লাজে অতিশয়।

এসএ/

নায়না অনন্যা

আলোকিত পৃথিবীতে
আলোকিত সমাজে,
আলোকিত হও তুমি শিশু ।
বৈরী পৃথিবী ধুয়ে মুছে যাক,
সম্ভাবনা তোমায় বলুক কিছু,
তুমি আগামী দিনের শিশু ।
এক তুমি পারো সব কিছু ।

অপু চৌধুরী

আজকে তারা বাঁধন হারা
করতে যাবে খেলা
দেখতে যাবে স্টেডিয়াম
প্রাণের গ্রন্থমেলা
কেউবা কিনবে গল্প গ্রন্থ
কিংবা ছড়ার বই
কেউবা আবার বিজ্ঞান গ্রন্থ
বাঁধাতে হইচই।
আপন মনে ভাবছে কেউবা
লেখক কেমন হয়
লেখক মানে বিশাল জ্ঞানী
সাধারণতো নয়।
আজকে তারা পূর্ণ করবে
মনের বড় সাধ
লেখক পেলে সেলফি তুলে
ভাঙবে খুশির বাঁধ।
আজকে তারা বাঁধন হারা
যাবে গ্রন্থমেলা
জেনে নিতে কেমন লেখক
কাটায় তাদের বেলা!

প্রিয়ান্তি বড়ুয়া পিউ

ময়না পাখি ময়না পাখি,
আমার কথা শুন।
পিউ বলে ডাকিস যদি,
দেবোই তোকে মন।
সোনার নূপুর পরিয়ে দেবো,
তোর দুটো রাঙা পায়।
আদর করে পিউ বলে,
ডাক নারে আমায়।
তুই কি আমার বন্ধু হবি,
অলস দুপুর বেলায়।
তোকে নিয়ে ঘুরতে যাবো,
বৈশাখি ওই মেলায়।

সাকিব আহমেদ তুষার

ছোট্ট শব্দ মা
            এ জগতে তার কারো সাথে
হয় না তুলনা।

জন্ম দিয়েছো মা
            সহ্য করে অনেক যাতনা
তাই তো তুমি সৃষ্টির কাছে সেরা অনন্যা।

খোদার পরে সকল ভক্তি
তোমারই তো হয় প্রাপ্তি
জান্নাত আছে তোমায় পায়ে
তাই তো ছিল নবীর উক্তি

শক্তি দিয়েছো
সাহস দিয়েছো
দিয়েছো প্রেরণা

সবার চেয়ে আপন তুমি মা
আমার প্রিয় মা।

 

মতিঝিল সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়
দ্বাদশ শ্রেণি

সাকিব আহমেদ তুষার

আমরা শিশু, আমারা শিশু 
জানো না কী তোমরা সবাই?
০ থেকে ১৮ অবদি
শিশু রবো মোরা সবাই।
আমরা যারা পারি না পড়তে
লিপ্ত করো কাজ করতে
অবহেলা অনাহারে,
রক্ত নিজের পানি করে
একটু নিজের খাবার জোটাতে
তবুও পাই না খেতে।
আমার বয়স এখনো বারো
ইস্কুলে যেতে ইচ্ছে ভালো
পারলাম না আর ইস্কুলে যেতে
নিয়ে গেল তোমার কারখানায়
আমার বড্ড হাত জ্বলে
আগুনে আমার খুউব ভয় করে
ও মা! মা গো! আমার খুব জ্বলছে
পিছনে থেকে কে জেনো আমায় ঘাড় টেনে তুলছে।
তুমি আমায় মারলে!
আমার মা কখনো আমায় এভাবে তো মারে নি
আমার খুব কষ্ট হচ্ছে তুমি কী তা বুঝোনি?
শুনেছিলাম ষোলো না হলে 
পারবো না আমি কাজ করতে
তবুও কেনো আমার হাতে এই আগুন তুলে দিলে
মা! মা! মা! আমার খুউব কষ্ট হচ্ছে।

 

সাকিাব আহমেদ তুষার
দ্বাদশ শ্রেণী
মতিঝিল বালক উচ্চ বিদ্যালয়

মোঃ মুহিববুল আসিফ রিদম

আজ সকালে বৃষ্টি বহু
               কিংবা সারারাত,
চেনা জানা বাবুইটা নেই-
              ওঠেনি যে চাঁদ।

চড়ুই-শালিক পেয়েছে ছুটি-
          আজ নেই কাজ আর,
ওদের পরিবর্তে ডোবার ব্যাঙ
            ডাকছে যে বারবার।

বৃষ্টি তবুও থামছে না যে 
      মনে হচ্ছে ঝড়,
বারান্দায় বেড়াল দুটো
     কাপছে থরথর।

চাঁদ ওঠেনা, সূর্যও না-
       আকাশ আঁধার তবুও 
   বাজেও এখন সাড়ে সাতটা
       বাজ পড়ে কভুও?

 সত্যিই কি আজ ছুটি ওদের?
       কদম ফুলের গন্ধ,
 চোখ মেলে তাকিয়ে দেখি-
        আজ স্কুল বন্ধ।।।

বয়স: ১২ বছর
স্কুল  : আহম্মদ উদ্দিন শাহ্ শিশু নিকেতন স্কুল ও কলেজ, গাইবান্ধা
ঠিকানা: চাকমামরোজপুর, গাইবান্ধা